Jul 14, 2024
Political

TMC Leader : TMC যুব সভাপতির নাম নিয়ে প্রতারণার অভিযোগ, প্রতারককে গ্রেফতার করলো জগাছা থানার পুলিশ

যুব সভাপতির নাম নিয়ে প্রতারণার অভিযোগ, প্রতারককে গ্রেফতার করলো হাওড়ার জগাছা থানার পুলিশ। তৃণমূল যুব কংগ্রেসের হাওড়া জেলা সদরের সভাপতি কৈলাশ মিশ্রের নাম নিয়ে জনৈক ব্যবসায়ীর সঙ্গে প্রতারণা করায় অভিযুক্ত ব্যক্তিকে গ্রেফতার করে পুলিশ। ধৃত ব্যক্তি শুক্রবার টাকা নিতে এসে পুলিশের হাতেনাতে ধরা পড়ে যান। প্রথমে আটক এবং পরে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। ধৃতের নাম গৌরীশঙ্কর গুপ্ত বলে জানা গেছে। অভিযোগ, ফোনে একাধিক ব্যবসায়ীর কাছে জগন্নাথদেবের রথের অনুষ্ঠানের জন্য টাকা দাবি করা হয়েছিল।

রামরাজাতলা জগাছা এলাকার এক ব্যবসায়ী বৃহস্পতিবার ভুয়ো ফোন কল পেয়ে বিষয়টি দলের শিবপুর নেতৃত্বকে জানান। এর পাশাপাশি জগাছা থানায় যোগাযোগ করেন তিনি। এরপর ফাঁদ পেতে ওই ব্যক্তিকে টাকা নিতে আসতে বলা হয়। শুক্রবার সকালে টাকা নিতে এসে হাতেনাতে ধরা পড়ে যান বালির বাসিন্দা গৌরীশঙ্কর। ওই ব্যক্তিকে শুক্রবার সকালে টাকা নিতে ডাকা হয় রামরাজাতলায়। সেখানেই আগেভাগে দাঁড়িয়েছিলেন তৃণমূলের যুব কর্মীরা। ছিলেন জগাছা থানার পুলিশ। টাকার খাম নেওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই প্রতারক ওই ব্যক্তিকে হাতেনাতে ধরা হয়। এই ঘটনায় রীতিমতো চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে।

এই ঘটনা সম্পর্কে ব্যবসায়ী বিবেক কর্মকার বলেন, হাওড়ার এক তৃণমূল কংগ্রেসের নেতার সঙ্গে কথা বলানোর জন্য আমার কাছে প্রথমে একটা ফোন আসে। আমার মনে হয়েছিল যার কথা বলে ফোন করা হয়েছিল সেটা তিনি নন। ফোনে বলা হয় জগন্নাথদেবের পুজোর জন্য ডোনেশন দিতে হবে। কত টাকা দিতে হবে তা তাঁর ভাই জানিয়ে দেবেন বলে বলা হয়। ফোন আসার পর থানায় অভিযোগ জানাই। এরপর তাঁকে ধরার জন্য আমি সন্ধ্যায় তাকে ফোন করি। তিনি মিটিংয়ে আছেন বলে ফোন কেটে দেন। পরে আবার তিনি ফোন করেন। প্রায় ৫০ হাজার টাকা ডোনেশন দিতে বলেন। আমি ওনাকে জানাই টাকা নিয়ে যাওয়ার জন্য কাউকে পাঠাতে। শুক্রবার সকালে টাকা নিতে আসলে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে।


এদিকে, শিবপুর তৃণমূল যুব কংগ্রেসের সভাপতি সুপ্রভাত মশাট বলেন, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশ দলের নাম করে টাকা তোলা যাবে না। সেখানে কিছু অসাধু ব্যক্তি যারা দলের লোকই নয়, হাওড়ার কিছু নেতৃত্বের নাম করে বিবেক কর্মকারকে চাঁদা চেয়ে ফোন করে। বিষয়টি উনি আমাকে জানান। সঙ্গে সঙ্গে বিষয়টি উচ্চ নেতৃত্বকে জানাই। এরপর থানায় জানালে পুলিশ দ্রুত ব্যবস্থা নেয়। পুলিশ অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে। অভিযুক্তকে জেরা করে জানতে পারা যায় এই ঘটনার সঙ্গে দলের কোনও সম্পর্ক নেই। তৃণমূল  কংগ্রেসকে বদনাম করার জন্য এই কাজ করা হয়েছে। অভিযুক্ত দলের নাম করে টাকা তুলছিলেন।

এই ঘটনা নিয়ে হাওড়া জেলা সদর তৃণমূল যুব কংগ্রেসের সভাপতি কৈলাশ মিশ্র বলেন, বৃহস্পতিবার বিকেলে দলের যুব নেতৃত্বের কাছ থেকে জানতে পারি বিবেক কর্মকার নামে এক ব্যক্তির কাছে আমার নাম করে একটা ফোন এসেছিল। বিবেক কর্মকারকে ফোন করে জানতে পারি কৈলাশ মিশ্র সেজে তাঁর কাছ থেকে কেউ চাঁদা চেয়েছিল। এই ঘটনা শুনেই বিষয়টি জানাই হাওড়া পুলিশ কমিশনারকে।

লিখিত অভিযোগ পেয়ে সকালে টাকা নিতে এলে সেখানে উপস্থিত পুলিশ অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে। আসলে আমাদের দলের নাম করে চক্রান্ত করা হচ্ছে। আমাদের দলের বদনাম করার জন্য যেই চক্রান্ত করেছে সেই শাস্তি পেয়েছে। আগামী দিনেও শাস্তি পাবে।

Related Post

About Us

24 Hour Online Bengali & English News Portal Registered under Government of India. Head Office in Kokata.

Need Help? Connect Now