Jul 14, 2024
Headlines

Supreme CBI WB : রাজ্যের অনুমতি ছাড়া নতুন সিবিআই তদন্ত নয়, পশ্চিমবঙ্গ সরকারের পক্ষে রায় সুপ্রিম কোর্টের

post-img

শৌভিক তালুকদার। কলকাতা সারাদিন।

রাজ্য সরকারের লিখিত অনুমতি ছাড়া নতুন কোন মামলায় তদন্ত শুরু করতে পারবে না কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা সিবিআই। কেন্দ্রীয় সরকারের আপত্তি উড়িয়ে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের দাবিকে মান্যতা দিল সুপ্রিম কোর্ট। যে রায়ের ফলে রীতিমত সংশয়ের মধ্যে পড়ে গেল সন্দেশখালিতে সিবিআই তদন্তের বৈধতা।
প্রাসঙ্গিক তথ্য চেপে গিয়ে রাজ্য এই আবেদন করেছে।

কেন্দ্রের এই অভিযোগকে মান্যতা না দিয়ে বিচারপতি বিআর গাভাই ও বিচারপতি সন্দীপ মেহেতার ডিভিশন বেঞ্চ জানিয়েছে, আবেদনটি বিচারযোগ্য।

২০১৮ সালের নভেম্বরে সিবিআইকে দেওয়া সাধারণ অনুমোদন রাজ্য প্রত্যাহার করে। কিন্তু তারপরেও রাজ্যের বিভিন্ন বিষয়ে সিবিআই রাজ্যের অনুমোদন না নিয়ে একের পর এক এফআইআর করে চলেছে। যে সিবিআই কেন্দ্রীয় সরকারের তত্ত্বাবধানে চলছে। সুপ্রিম কোর্টের অভিমত, রাজ্যের এই অভিযোগকে প্রাথমিক মূল্যায়নের ভিত্তিতে বিচার করা দরকার। প্রাসঙ্গিক আইন অনুযায়ী সিবিআই এমন পদক্ষেপ করতে পারে কিনা, সেই বিষয়টি খতিয়ে দেখা প্রয়োজন। এই অভিমত দিয়ে ১৩ আগস্ট পরবর্তী শুনানির দিন ঘোষিত হয়েছে।



সুপ্রিম কোর্টের এই রায়ের পরেই বুধবার সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে রাজ্যের মন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য বলেন, "রাজ্য সরকারকে না জানিয়ে বা তাদেরকে অন্ধকারে রেখে কেন্দ্রীয় এজেন্সিগুলো তাদের কাজ চালাচ্ছিল। সরকারের কোন অনুমতি না নিয়ে সরকারের এক্তিয়ার অগ্রাহ্য করে সিবিআই তাদের কাজ চালিয়ে যাচ্ছিল।"


সিবিআই-এর অপপ্রয়োগ নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের রায়কে স্বাগত জানালো তৃণমূল। দলের সোশ্যাল মিডিয়া হ্যান্ডেলে জানানো হয়, "সত্যই জেতে সর্বদা।" সেই সঙ্গে দাবি করা হয়, "সর্বোচ্চ আদালতের এই সিদ্ধান্ত সেই সব মানুষদের জন্য একটা শিক্ষা যাঁরা গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে ক্ষমতায় আসা রাজ্যের সরকারকে নিচু দেখাতে কেন্দ্রীয় এজেন্সির অপব্যবহার করে। যুক্তরাষ্ট্রীয় পরিকাঠামোর মূল নীতিগুলির উপর কোনও আঘাত মেনে নেওয়া হবে না। এই পদক্ষেপ আরও স্পষ্ট করে দিচ্ছে রাজ্যের আইন শৃঙ্খলার ব্যবস্থায় কোনও রাজনৈতিক দল নিজেদের স্বার্থরক্ষায় অনধিকার চর্চা করতে পারে না।"

রাজ্যসভার সাংসদ তথা তৃণমূলের রাজ্যসভা উপদলনেতা সাগরিকা ঘোষ দাবি করেছেন সুপ্রিম কোর্টের এই সিদ্ধান্ত এনডিএ জোটের গালে একটি বড় থাপ্পড়। তাঁর দাবি, সুপ্রিম কোর্ট যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামো ও রাজ্যের অধিকারকে তুলে ধরেছে। সিবিআই কোনওভাবেই রাজ্যে ইচ্ছামতো প্রবেশ করে তদন্ত শুরু করতে পারে না, রাজ্যের অনুমতি ছাড়া।


তৃণমূলের রাজ্যসভার আরেক সাংসদ সুস্মিতা দেব আইনের ধারা তুলে ধরে কীভাবে সিবিআই নিজেই আইন ভেঙেছে এই মামলায়, তা তুলে ধরেন। তাঁর দাবি, দিল্লি স্পেশাল পুলিশ এস্ট্যাবলিশমেন্ট অ্যাক্ট ১৯৪৬-এর ৬ ধারাকে লঙ্ঘন করে যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোর উপর প্রশ্ন তোলা হয়েছিল। আমরা সংসদে অনেকবার জানিয়েছি আইনশৃঙ্খলা রাজ্যের বিষয়। কেন্দ্রীয় এজেন্সি আইন ভেঙেছে এটা প্রমাণিত। রাজ্যের দাবি বজায় রেখে এবার আদালত বিচার করবে আইন লঙ্ঘনের বিষয়টি।
সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশকে কেন্দ্র সরকারের উপর কড়া ধমক বলে দাবি করেছেন শিক্ষা মন্ত্রী ব্রাত্য বসু। তিনি লেখেন, "বিজেপি শাসিত কেন্দ্র সরকার ও তার হাতের পুতুলদের উপর সুপ্রিম কোর্টের এই রায় একটা কড়া ধমক। যথেষ্ট হয়েছে"।

Related Post

About Us

24 Hour Online Bengali & English News Portal Registered under Government of India. Head Office in Kokata.

Need Help? Connect Now